সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০
দূর্দান্ত সময় কাটাচ্ছেন সিঙ্গেল মিমি!

টলিউড সুন্দরী মিমি চক্রবর্তী। ২০১০ সাল থেকে শোবিজ দুনিয়ায় হাঁটছেন। মডেলিং দিয়ে যাত্রা শুরু। এখন থিতু হয়েছেন বড়পর্দায়। স্টার জলসার ‘গানের ওপারে’ সিরিয়ালে ‘পুপে’ চরিত্রে অভিনয় করে নজরে আসেন মিমি। তার আগে অভিনয় করেছেন আকাশ বাংলার ‘চ্যাম্পিয়ন’ সিরিয়ালে।

বড়পর্দায় মিমির অভিষেক ২০১২ সালে। অর্জুন চক্রবর্তীর বিপরীতে ‘বাপি বাড়ি যা’ সিনেমায় দেখা গেছে তাকে। প্রথম সিনেমায় অভিনয় করেই ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছেন মিমি। তারপর রাজ চক্রবর্তীর ‘বোঝে না সে বোঝে না’ সিনেমায় অভিনয় করে নিজেকে নিয়ে যান অন্য উচ্চতায়। ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত অভিনয় করেছেন প্রায় ১৫টি সিনেমায়। স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন ‘টেলিকন্যা’, ‘বিগ বাংলা রাইজিং স্টার’ সম্মাননা।

টলিপাড়ার ওপেন সিক্রেট, পরিচালক রাজ চক্রবর্তীর সঙ্গে গভীর প্রেম ছিল মিমির। পরে ভেঙে যায় সে সম্পর্ক। ২০১৮ সালের ৭ মার্চ রাজ বিয়ে করেন শুভশ্রীকে। রাজ-মিমির সম্পর্ক ছেদ হওয়ার পর থেকে এখনও সিঙ্গেল এ অভিনেত্রী। যদিও টলিপাড়ায় কিছুদিন আগে উঠেছিল তার নতুন প্রেমের গুঞ্জন। কিন্তু ধোপে টিকেনি।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ির এ মেয়ে একা থাকতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। আর একা থেকেই জীবনের দূর্দান্ত সময়টা কাটাচ্ছেন। তার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চোখ রাখলেও বিষয়টি বুঝতে পারা যায়। মিমির বান্ধবী নুসরাতের বিয়ের পর শোনা গিয়েছিল- এবার বিয়ে করবেন মিমি। কিন্তু সে খবর উড়ে গেছে বাতাসে। কবে বিয়ে করবেন মিমি? ভারতীয় গণমাধ্যমে এক সাক্ষাৎকারে এমন প্রশ্নে ওই সময় মুখে পুরোপুরি কুলুপ এটেঁছিলেন তিনি। মিমির ঘনিষ্ঠজনেরাও এ ব্যাপারে পরিষ্কার কিছুই বলছেন না।

অভিনেত্রী মিমি নেত্রী হওয়ার সুযোগ পান ২০১৯ সালের ভারতের লোকসভা নির্বাচনে। তৃণমূল কংগ্রেসের টিকেট পেয়ে যাদবপুর কেন্দ্র থেকে নির্বাচন করেন তিনি। বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য হয়ে যান মিমি। অভিনয়ের বাইরে এখন জনসেবা নিয়েই বেশি সময় কাটান তিনি।

নিউ নরমাল পরিস্থিতি মিমি অভিনয় করেছেন ‘এসওএস কলকাতা’ সিনেমায়। গত ২১ অক্টোবর মুক্তি পেয়েছিল সিনেমাটি। এদিকে, মুক্তির অপেক্ষায় আছে মিমি-জিৎ জুটির নতুন সিনেমা ‘বাজি’। সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে সিনেমার ট্রেলার। ট্রেলারে মিমির চুম্বন ও অ্যাকশন দৃশ্য নজর কেড়েছে ভক্তদের। জিতের প্রযোজনা সংস্থা থেকে নির্মিত এ সিনেমাটি মুক্তির তারিখ ঘোষণা করা হবে শিগগিরই।

স্টার জলসা, স্টার প্লাস সহ বিভিন্ন ভারতীয় চ্যানেল বন্ধ

স্টার জলসা, স্টার প্লাসসহ বিভিন্ন ভারতীয় চ্যানেল বন্ধ করে দিয়েছে কেবল অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (কোয়াব)। চ্যানেলগুলো পরিবেশক জাদু ভিশনের সঙ্গে সমস্যা সমাধান না হওয়ায় বাংলাদেশে স্টার গ্রুপের ওই চ্যানেলগুলো বুধবার থেকে সম্প্রচার বন্ধ রেখেছে কেবল অপারেটররা।

কেবল অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (কোয়াব) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এসএম আনোয়ার পারভেজ সাংবাদিকদের বলেন, “পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৪ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে স্টার গ্রুপের (স্টার প্লাস, স্টার জলসা, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক, স্টার গোল্ড ও লাইফ ওকে) সম্প্রচার বন্ধ রেখেছে কেবল অপারেটররা।”

তবে যেসব অপারেটর কোয়াবের সদস্য নয়, তারা সম্প্রচার চালু রেখেছে জানিয়ে আনোয়ার পারভেজ বলেন, “আমরা বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছি, এর ফলে দেশের মোট ৭৫ শতাংশ দর্শক এবং ঢাকার প্রায় ৯০ শতাংশ দর্শক এসব চ্যানেল দেখতে পারছে না।”

এর আগে গত ২৮ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলন করে স্টারগ্রুপের চ্যানেল বন্ধের হুমকি দিয়েছিল ক্যাবল অপারেটর্স অব বাংলাদেশ (কোয়াব)। সে সময় জানানো হয়, সাতদিনের মধ্যে জাদু ভিশন লিমিটেড তাদের দাবি না মানলে স্টার গ্রুপের সাত টিভি চ্যানেল বর্জন করবে।

সে অনুযায়ী, বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে তারা চ্যানেলগুলোকে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন। এ নিয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছে কোয়াব। এতে কোয়াবের প্রেসিডেন্ট এসএম আনোয়ার পারভেজ বলেন, দেশজুড়ে ক্যাবল অপারেটরদের এসব চ্যানেল প্রদর্শন না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

কোয়াব প্রেসিডেন্ট আরও জানান, কোয়াবের বিবৃতি দেয়ার পর ইতোমধ্যে অনেক ক্যাবল অপারেটর স্টার গ্রুপের চ্যানেলগুলো প্রদর্শন বন্ধ করে দিয়েছে। অন্যরাও বন্ধ করার প্রক্রিয়ায় আছেন।

২০১০ সাল থেকে বাংলাদেশে স্টার প্লাস, স্টার জলসা, ন্যাশনাল জিওগ্রাফি, লাইফ ওকে এবং স্টার গোল্ডের বাংলাদেশি পরিবেশক হিসেবে কাজ করছে জাদু ভিশন লিমিটেড।

কোয়াব নেতাদের অভিযোগ, জাদু ভিশন নানা অজুহাতে যখন-তখন বিদেশি চ্যানেলগুলো বন্ধ করে দিচ্ছে। গ্রাহকদের জিম্মি করে ক্যাবল টিভি ব্যবসাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানে জাদু ভিশন লিমিটেডকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত সময় দিয়েছে কোয়াব।

ধর্ষণের জন্য নারীদের পোশাককে দায়ী করলেন অনন্ত জলিল

ধর্ষণের জন্য নারীদের খোলামেলা পোশাককে দায়ী করে অভিনেতা অনন্ত জলিল বলেছেন, এ ধরনের পোশাকের কারণে মানুষ আপনার মুখের পরিবর্তে আপনার শরীর দেখে। তারা অশ্লীল মন্তব্য করে এবং ধর্ষণের কথা চিন্তা করে।

নারীদের ধর্ষণ ও সহিংসতার ক্রমবর্ধমান ঘটনার বিরুদ্ধে দেশব্যাপী বিক্ষোভের মধ্যেই এমন মন্তব্য করে বসলেন তিনি। শনিবার রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন অনন্ত জলিল। ৬ মিনিট ১৭ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে নারীদেরকে নিজের ‘ভাই হিসেবে’ কিছু পরামর্শ দিতে শোনা যায় এই অভিনেতাকে। ভিডিওটি তার স্ত্রী বর্ষার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজেও পোস্ট করা হয়েছে।

অনন্ত জলিল বলেন, নারীরা (বাংলাদেশে) অশালীন পোশাক পরেন অন্য দেশের নারী, সিনেমা, টেলিভিশন এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে। এ ধরনের পোশাকের কারণে মানুষ আপনার মুখের পরিবর্তে আপনার শরীর দেখে। তারা (নারীদের সম্পর্কে) অশ্লীল মন্তব্য করে এবং ধর্ষণের কথা চিন্তা করে।

অনন্ত জলিল আরও বলেন, আপনারা কী (নারীরা) নিজেকে আধুনিক বলে গণ্য করেন? আপনি যে পোশাকটি পরছেন তা কী আধুনিক নাকি অশ্লীল? একটি আধুনিক পোশাক বলতে কেবল আপনার মুখ দেখানো এবং শালীন পোশাক দিয়ে আপনার শরীর আবৃত থাকা বুঝায় যেটিতে আপনাকে সুন্দর দেখায়।

তিনি আরও বলেন, মুখ ব্যতীত পুরো শরীর আবৃত হয় না এমন যেকোনো পোশাকেই নারীদের ‘অত্যন্ত খারাপ’ দেখায়।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের এই অভিনেতা আরও বলেন, ছেলেদের মতো টি-শার্ট পরে আপনি রাস্তায় নামবেন এবং যখন সেখানে অসম্মানিত বা ধর্ষিত হয়ে ঘরে ফিরে আসবেন তখন হয় আপনি আত্মহত্যা করতে পারেন অথবা প্রকাশ্যে আপনি মুখ দেখাতে পারবেন না। ‘শালীন’ পোশাক ধর্ষণ সম্পর্কে চিন্তাভাবনা নিবৃত করবে উল্লেখ করে অনন্ত বলেন, আপনি যদি শালীন পোশাক পরেন তাহলে মানুষ আপনাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে দেখবে।

তবে ভিডিওর শুরুতে ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধেও কথা বলেছেন অনন্ত জলিল। ধর্ষণ করার আগে পুরুষদের দুবার ভাবার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদি আপনার স্ত্রী, বোনের সঙ্গে একই ঘটনা ঘটে তাহলে আপনি কী করবেন?

অনন্ত জলিল প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন জানিয়ে বলেন, আপনি আমাদের অভিভাবক, আপনি শক্তহাতে এই অমানুষদের জন্য মৃত্যুদণ্ড আইন করে তা বাস্তবায়ন করুন।

হাই-রিস্ক জোনে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

করোনায় আক্রান্ত বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা এখনও সংকটজনক। সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় হাই-রিস্ক জোনে রয়েছেন। রয়েছেন অর্ধচেতন অবস্থায়।

চিকিত্‍‌সকেরা জানিয়েছেন, ৮৫ বছর বয়সি অভিনেতা 'বেশ অস্থির' অবস্থায় রয়েছেন। যদিও তার অক্সিজেন স্যাচুরেশন মাত্রা এখন স্বাভাবিক অবস্থায় আনা সম্ভব হয়েছে।

সৌমিত্রর এক চিকিত্‍‌সক জানান, 'প্রবীণ অভিনেতার শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা এখন স্বাভাবিক। তবে, পটাশিয়ামের মাত্রা কম রয়েছে। সোডিয়াম-পটাশিয়ামের ভারসাম্য স্বাভাবিক করার চেষ্টা হচ্ছে। নিদ্রালু অবস্থায় রয়েছেন। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা স্বাভাবিক হওয়া সত্ত্বেও তাকে দিশেহারা, অত্যন্ত অস্থির লাগছে। গায়ে জ্বরও নেই। তবে, বিপদ এখনও সম্পূর্ণ কাটেনি।

শনিবার দুপুরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাবার স্বাস্থ্যের খবর জানিয়ে একটি পোস্ট করেন সৌমিত্র-কন্যা নাট্যকর্মী পৌলমী বসু।

তিনি বলেন, 'বাবার শারীরিক পরিস্থিতি আপাতত স্থিতিশীল। শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও স্বাভাবিক কাজ করছে। এমনকী অক্সিজেনের অভাবে আপাতত তিনি ভুগছেন না। রক্তচাপও স্বাভাবিক।

আবারো বিয়ে করলেন শমী কায়সার

একসময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শমী কায়সার আবারও বিয়ের করেছেন। বরের নাম রেজা আমিন। জানা গেছে পারিবারিক ভাবে গত ২৭ সেপ্টেম্বর তাদের বিয়ে হয়। শুক্রবার (৯ অক্টোবর) জমকালো অয়োজনে বিয়ের অনুষ্ঠান হয়। শমীর স্বামী রেজা আমিন পেশায় ব্যবসায়ী।

শমী কায়সারের বিয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক শেয়ার করেছেন অভিনেত্রী তারিন এবং নাট্যকার ও পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী। চ্যনিকা চৌধুরী কিছু ছবি পোস্ট করে শমী কায়সারকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি লেখেন, 'অনেক ভাল থাকিস। কারণ তুই সব সময় সুন্দর লাইফ লিড করতে চেয়েছিস।' তিনি আরও লিখেন 'শমীর বরের নাম রেজা আমিন সুমন।' 

এর আগে ১৯৯৯ সালে ভারতীয় নাগরিক ব্যবসায়ী অর্নব ব্যানার্জী রিঙ্গোকে বিয়ে করেন শমী। পরে  দুই বছর পর তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। পরবর্তীতে তিনি ২০০৮ সালের ২৪ জুলাই ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষক মোহাম্মদ আরাফাতকে বিয়ে করেন। পরে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। 

শমী কায়সার নব্বই এর দশকের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন। সেই সময় বাংলাদেশে টিভি নাটকে শমী কায়সার তার দূর্দান্ত অভিনয় দিয়ে দর্শকের মন কেড়ে নিয়েছিলেন। শমী ১৫ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার শহীদ বুদ্ধিজীবি শহীদুল্লাহ কায়সার ও মাপান্না কায়সার। তার মা পান্না একজন লেখিকা এবং সাবেক সংসদ সদস্য। শমীর একজন ছোট ভাই আছেন, অমিতাভ কায়সার। শমী কায়সার ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ( ই-ক্যাব)-এর সভাপতি। 

বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন নেহা, জানালেন নিজেই

পুরো ইন্ডাস্ট্রিতে রটে গিয়েছিল উদিত নারায়ণের ছেলে আদিত্য নারায়ণের সঙ্গেই বিয়ে হতে চলেছে নেহা কক্করের! এমনকি রিয়ালিটি শোতে এসে নেহার সঙ্গে বিয়ের কথা নিজেই স্বীকার করেছিলেন আদিত্য ও তার বাবা উদিত। রিয়ালিটি শোতেই গলায় মালা পরিয়ে নেহা ও আদি মোটামুটি বিয়ের মহড়াও করে ফেলেছিলেন।

তবে এ সময় লোক দেখানো ছিল, জানিয়েছেন তারা নিজেই। নতুন খবর হলো, আদিত্য নারায়ণ নয় বরং নেহার পাত্র অন্য কেউ। যাকেই নেহা মনপ্রাণ দিয়ে ভালোবেসে এবার বিয়ে করতে চলেছেন!

মুঝসে শাদি কারোগি রিয়ালিটি শো থেকে জনপ্রিয়তায় আসা রোহন প্রীতের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধতে চলেছেন নেহা কক্কর ৷ আর সে খবর নিজেই সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়ে দিলেন নেহা।

নেহা কক্কর তার ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে লিখলেন, ‘চলো বিয়ে করে ফেলি এই লকডাউনেই...।’ অন্যদিকে, বিয়ের ইঙ্গিত দিয়ে ইনস্টাগ্রামে ভিডিও শেয়ার করেছেন রেহনপ্রীত!

তবে সূত্রের খবর এই মাসের ২৪ তারিখ নিজের প্রেমিক রোহনপ্রীত সিংকে বিয়ে করছেন নেহা। রোহন একজন পাঞ্জাবি গায়ক। এই খবর জানাজানি হওয়ার পর চমকেছেন নেহার প্রাক্তণ প্রেমিক। তেমনই অবাক হয়েছেন উদিত নারায়ণ।

তিনি রিয়ালিটি শোতে এসে বলেছিলেন নেহার জন্য এই শো তিনি দেখেন। সেই সঙ্গে অসাধারণ ট্যালেন্টেড ছেলে মেয়েদের গান তাকে মুগ্ধ করে। নেহাকেই পুত্রবধূ হিসেবে দেখতে চান তিনি। তবে নেহার বিয়ে অন্য কারও সঙ্গে হওয়ায় বেশ কিছুটা অবাক হয়েছেন উদিত নারায়ণ।

তোমার দেহের প্রতিটা ইঞ্চি ভোগ করব অশ্লীল কমেন্টে গায়িকার ক্ষোভ

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তারকাদের ওপর কদর্য আক্রমণের যেন দিন দিন বেড়েই চলেছে। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হলো জনপ্রিয় গায়িকা ইমন চক্রবর্তীর নাম।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় নোংরা ভাষায় কটাক্ষ করা হয় ইমনকে। যেখানে বলা হয়, ‘তোমার দেহের প্রতিটা ইঞ্চি ভোগ করব। প্রতিটা পশমে আদর করব।’ সোশ্যাল মিডিয়ায় অশ্লীল আক্রমণের মুখে পড়ে, তার স্ক্রিনশট শেয়ার করেন ইমন। তবে নেটিজেনদের মধ্যে একজন ইমনকে আক্রমণ করলেও, তা দেখে অন্যরা প্রতিবাদ করেছেন। মহিলাদের সম্মান করতে শিখুন বলে পালটা ভদ্রতা শিখিয়েছেন জনৈক ব্যক্তিকে।

 

এদিকে কদর্য আক্রমণের মুখে পড়ে তার স্ক্রিনশট শেয়ার করে, ভক্তদের কাছে ওই প্রোফাইলের বিরুদ্ধে রিপোর্ট করার আবেদন জানান ইমন। পাশাপাশি তার অনুগারীরা কী করতে পারেন, এবার তা দেখিয়ে দেওয়ার সময় এসেছে বলেও রাগে, ক্ষোভে ফুঁসে ওঠেন ইমন চক্রবর্তী।

ছেলের বিয়ে, কিন্তু মন ভালো নেই ডিপজলের

ঢালিউড অভিনেতা ও প্রযোজক মনোয়ার ডিপজলের ছেলে শাদমান মনোয়ারের বিয়ে। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) তাদের হলুদ সন্ধ্যা হয়েছে এবং বৃহস্পতিবার (০১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ডিপজলের সাভারের বাড়িতে পারিবারিক আয়োজনে সম্পন্ন হবে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা। 

তবে করোনার কারণে জমকালোভাবে ছেলের বিয়েটা করাতে না পারাই মন ভালো নেই ডিপজলের।

এ বিষয়ে ডিপজল বলেন, 'পারিবারিকভাবে বড় ছেলের বিয়ে হচ্ছে। দুই পরিবার ও সিনেমা অঙ্গনের কিছু লোক থাকবে বিয়েতে। আমার ইচ্ছে ছিল, বড় আয়োজন করে ছেলের বিয়ে দেব। কিন্তু করোনার কারণে সেটি করা গেল না। সে জন্য মনটা খারাপ। তবে ইচ্ছে আছে, মহামারি কেটে গেলে ছেলের বিবাহবার্ষিকীতে বড় আয়োজন করে অনুষ্ঠান করব।'

মনোয়ার হোসেন ডিপজল তিন ছেলে ও এক কন্যাসন্তানের জনক। এর আগে ২০১৮ সালের জুনে মেয়ে ওলিজা মনোয়ার বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন।

আবারও আসছে ‘গেন্দা ফুল’, থাকছে চমক

চলতি বছরই প্রকাশ হয়েছিল র‌্যাপার বাদশার ‘গেন্দা ফুল’। মূলত পশ্চিমবঙ্গের সাধক রতন কাহারের বিখ্যাত গানটিই নতুন ধাঁচে তুলে আনেন তিনি। এতে মডেল হয়েছিলেন জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ। তবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সনি মিউজিক এতে উল্লেখ করেনি গানের আসল মালিক রতম কাহারের নাম। 

রতন কাহারের নাম না উল্লেখ করায় সমালোচনার মুখে পড়তে হয় সনি মিউজিককে এবং র‌্যাপার বাদশাকে। রতন কাহার যেন এবার সেই অবহেলারই পুরস্কার পাচ্ছেন।  

কলকাতার সংগীত পরিচালক-তবলা বাদক বিক্রম ঘোষ ও পরিচালক অরিন্দম শীল তৈরি করছেন নতুন ‘গেন্দা ফুল’। এতে এক ফ্রেমে হাজির হচ্ছেন জ্যাকুলিন, রতন কাহার ও কলকাতার দেবলীনা।

আর এ উদ্যোগটি নিয়েছে একই প্রতিষ্ঠান, সনি মিউজিক। তাদের তরফ থেকে বিক্রম ঘোষের কাছে এই প্রস্তাব আসে। বলা হয় ‘গেন্দা ফুল’-এর একটি তবলা মিক্স করতে হবে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে বিক্রম বলেন, ‘ডিজে মিক্স হয় শুনেছি, রিমিক্স শুনেছি। কিন্তু তবলা বিট মিক্স! তখনই ঠিক করি যদি এটা তবলা মিক্স হয় তবে রতন কাহারকে দিয়েই গাওয়াবো।’
বিক্রম ঘোষ বিষয়টি নিয়ে খানিকটা দ্বিধায় ছিলেন। কারণ রতন কাহার কাজটি আদৌ করবেন কিনা- সে বিষয়ে সন্দেহ ছিল। দূর হয়েছে সে আশঙ্কা। কারণ সম্প্রতি এই গীতিকবি অংশগ্রহণ করেছেন গান ও ভিডিওতে।

এদিকে বাদশার ‘গেন্দা ফুল’-এ অন্তরা ছিল না। নতুনটাতে সেটি থাকছে। নতুন করে অন্তরা লিখেছেন সুগত গুহ। গেয়েছেন ইমন। নতুন মিউজিক ভিডিওতে জ্যাকুলিনের মতোই লাল পেড়ে শাড়িতে দেখা যাবে দেবলীনা কুমারকে। অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে আসবে গানটি।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া।