বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০
জাদুকরি পরিবর্তন ঘটে সকালে কুসুম গরম লেবু পানিতে

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে কুসুম গরম পানির সঙ্গে যদি কয়েক ফোঁটা লেবু মিশিয়ে পান করা হয়, তবে এর অভাবনীয় উপকার কিছুদিনের মধ্যেই পাবেন। আসুন জেনে নেই সকালে লেবু পানি পানের উপকারিতা:- 

হজম শক্তি বাড়ায়
লেবু পানিতে যে এসিড রয়েছে তা খাবার হজম করতে সাহায্য করে। এতে আছে সাইট্রাস ফ্লাভোনইডস যা পাকস্থলীতে খাবারকে ভেঙে সহজেই হজম করে। বয়সের সাথে সাথে হজম ক্ষমতা কমে যায়। এছাড়াও পানির সাথে কয়েক টুকরা লেবু বা কুচি করা লেবুর ছোলা মিশিয়ে খেলেও আপনি পেকটিনের গুণ পাবেন। পেকটিন হলো এক ধরনের ফাইবার যা ছোলা থেকে পাওয়া যায়। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, ফাইবার হজম শক্তি বাড়াতে বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। তাই লেবু পানি না খেলেও টুকরা লেবু পানিতে দিয়ে বা লেবুর ছোলা পানিতে দিয়ে খেলে উপকার পাবেন।

শরীর হাইড্রেট রাখবে
লেবুর গুণ আপনাকে সরাসরি হাইড্রেট রাখবে না। তবে লেবুর স্বাদ এ বিষয়ে পালন করবে এক অনন্য ভূমিকা। শরীরে পানির পারফেক্ট ব্যালেন্স বজায় রাখতে সারাদিনে আপনার প্রচুর পরিমাণ পানি পান করা দরকার। পানিতে কোনো স্বাদ নেই বলেই হয়তবা বারবার খাবার আগ্রহটা কাজ করে না। সেক্ষেত্রে লেবু পানি পানে স্বাদও পাবেন এবং হাইড্রেটও থাকবেন। যদিও প্রতিদিন আপনার শরীরে ৮ গ্লাস পানির চাহিদা থাকে, তবুও অনেক কিছুর ওপর ভিত্তি করেই এ চাহিদা কম বেশি হতে পারে। যেমন- আপনার ওজন, কাজের চাপ, চাহিদা এবং আবহাওয়ার ওপর নির্ভর করে আপনার শরীরে ঠিক কতটুকু পরিমাণ পানি পরিমিত বলে গণ্য হবে।

ওজন কমাতে সাহায্য করে
আপনি যদি ডায়েট করার চিন্তা-ভাবনা করতে থাকেন, তাহলে লেবু পানিকে আপনার সেরা বন্ধু হিসেবে বেছে নিতে হবে। লেবুতে আছে পলিফেনলস যা ক্ষুধা নিবারণে সাহায্য করে। এছাড়া খাওয়ার আগে পানি পান করলেও ক্ষুধা কিছুটা কম লাগে। সকালে উঠে যদি আপনার কমলার জুস পানের অভ্যাস থাকে, তাহলে অভ্যাসটি বদলে লেবু পানি পানের চেষ্টা করুন। কারণ কমলার জুসে ক্যালরি থাকে যাতে আপনার ওজন বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। ৮-১২ আউন্স নরমাল বা ঠান্ডা পানিতে পুরো একটি লেবুর রস মিশিয়ে নিন। তবে ওজন কমানোর জন্য ঠান্ডা লেবুর পানিই বেশি কার্যকরী।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
টক জাতীয় যেকোনো ফল, যেমন- লেবুতে আছে ভিটামিন সি যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এছাড়াও লেবুতে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যার প্রভাবে শরীরে কোনো রোগ জীবাণু সহজে বাসা বাঁধতে পারে না। তাই যেকোনো ধরনের ইনফেকশন বা অসুস্থতা এড়াতে লেবুর কোনো বিকল্প নেই। আর লেবুর খোসায় আছে ক্যালসিয়াম, পেকটিন, ফাইবার ও বিভিন্ন খনিজ পদার্থ যা বিভিন্ন রোগের নিরাময়ে সাহায্য করে।

বয়স ধরে রাখে

এখানেও ভিটামিন সি! গবেষকদের মতে, ভিটামিন সি বলিরেখার সম্ভাবনা অনেকটা কমিয়ে আনে। ভিটামিন সি-তে আছে কোলাজেন যা ত্বকের সুরক্ষায় কাজ করে।

লিভারের কার্যক্রম সচল রাখে
লিভার আপনার শরীরে ফিল্টার হিসেবে কাজ করে। লেবুর সাইট্রাস ফ্লাভোনইডস‌ লিভার থেকে বর্জ্য ফেলে দিতে ও লিভারের ফ্যাট কমাতে সাহায্য করে। তাই লিভারকে সুস্থ রাখার জন্য লেবু পানি খুব উপকারী।

পটাশিয়ামের মাত্রা বাড়ায়
সাধারণত পটাশিয়ামের কথা বললেই প্রথমে কলা এবং বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি ও ফলমূলের কথা মাথায় চলে আসে। কিন্তু লেবু থেকেও যথেষ্ট পরিমাণ পটাশিয়াম পাওয়া সম্ভব। পটাশিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে, মাংসপেশীর কর্মক্ষমতা বাড়ায় ও হার্টবিট নিয়ন্ত্রণ করে। তাই আপনার শরীরে পটাশিয়ামের চাহিদা পূরণ হওয়া দরকার। যেহেতু লেবুতে পটাশিয়াম রয়েছে তাই দিনের শুরুতে লেবু পানি পান করে নিলে আপনার শরীরে পটাশিয়ামের চাহিদার কিছুটা পূরণ করতে পারবেন।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে
কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সমাধানেও দারুণ কাজ করে লেবু পানি। সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে হালকা কুসুম গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে পান করে নিন। শুধু লেবুর রস গরম পানি দিয়ে পান করতে খারাপ লাগলে এর সাথে মিশিয়ে নিতে পারেন মধু ও সামান্য লবণ। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার এ ফর্মুলাটি অভাবনীয়ভাবে কাজ করে। তাই সকালে উঠে লেবু পানি গলাধঃকরণ করলে আপনার পেট পরিষ্কার হওয়ার ব্যাপারটা একেবারেই নিশ্চিত।

কিডনির পাথর প্রতিরোধ করে
কিডনিতে পাথর হওয়ার সমস্যাটি এখন অহরহ দেখা যায়। অপারেশন করে, ওষুধ খেয়ে বা লেজার চিকিৎসার মাধ্যমে এ রোগটি নিরাময় করা যায়। কিন্তু এ রোগটিই যেন না হয় হয় তাই আগে থেকে সাবধানতা অবলম্বন করা ভালো। ডিহাইড্রেশন বা পানির স্বল্পতার কারণে কিডনিতে পাথর জমে। তাই লেবু পানি পান করলে আপনার শরীরে পানির অভাব হবে না এবং কিডনিতে পাথর জমারও আশঙ্কা থাকবে না। এছাড়া লেবু কিডনি ও পাকস্থলীর পাথর গলাতেও সাহায্য করে।

ক্লান্তি দূর করে
গরমের দিনে আমাদের শরীর প্রচণ্ড ঘেমে যায়। ফলে শরীরে ব্লাড সুগার লেভেল কমে যায় এবং আমরা ক্লান্ত হয়ে যাই। লেবু পানিতে চিনি মিশিয়ে পান করে নিলে ব্লাড সুগার লেভেল বেড়ে যায় এবং ক্লান্তিটা আর থাকে না!

ডায়াবেটিকদের জন্য উপকারী
লেবুতে যে ফাইবার আছে তা আপনার শরীর ভাঙতে পারে না বলেই ব্লাড সুগার লেভেলে এর জন্য কোনো প্রভাব পড়ে না। Joslin Diabetes Center-এর পরামর্শ অনুযায়ী দিনে ২০-৩৫ গ্রাম ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া দরকার। মাঝারি আকারের একটি লেবুর রস থেকে ২.৪ গ্রাম ফাইবার পাওয়া যায় যা একজন ডায়াবেটিক রোগীর শরীরে ৭-১২% ফাইবারের চাহিদা পূরণ করে।

মুখের দুর্গন্ধ হতে দেয় না
লেবুতে যে সাইট্রাস আছে তা সহজেই মুখের ভেতর ব্যাকটেরিয়া হওয়ার আশঙ্কা রোধ করে। আর তাই মুখে দুর্গন্ধ হয় না। তবে লেবুর এসিড দাঁতে অতিরিক্ত পরিমাণ পড়লে দাঁতের এনামেল নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই মাঝে মাঝে স্ট্র দিয়ে লেবু পানি পান করতে পারেন।

বিপাকে সাহায্য করে
ঠান্ডা পানি বিপাকে তুলনামূলক বেশি উপকারী। আর লেবুর খোসা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে যা বিপাক প্রক্রিয়ায় সহায়ক। তাই ঠান্ডা লেবুর পানিতে কিছুটা লেবুর খোসা কুচি করে মিশিয়ে খেয়ে নিন।

৩০শে জানুয়ারিঃ আজকের এই দিনে

আজ ৩০ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার। ১৬ মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ। গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ৩০ তম দিন।

এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি:

১৬৪১ - মালাবির মালাক্কা ছেড়ে দিতে ডাচদের কাছে পর্তুগিজরা আত্মসমর্পণ করে।

১৬৪৮ - মুয়েন্সতারে স্পেন ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

১৬৪৯ - কমনওলেথ অব ইংল্যান্ড প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৬৪৯ - ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম চার্লসের শিরোচ্ছেদ করা হয়।

১৮৪০ - চীনের সম্রাট ব্রিটেনের সাথে সব ধরনের বাণিজ্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

১৮৮৯ - ভিয়েনার যুবরাজ রুডলফ ও তার ১৮ বছরের প্রেয়সী আত্মহত্যা করে।

১৯০২ - চীন ও কোরিয়ার স্বাধীনতার জন্য জাপানের সাথে ব্রিটেনের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

১৯৩৩ - হিটলার জার্মানির চ্যান্সেলর হন এবং জার্মানিতে ফ্যাসিবাদী একনায়কতন্ত্রের উত্থান ঘটে।

১৯৬৪ - র‌্যাঞ্জার প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে র‌্যাঞ্জার ৬ উৎক্ষেপণ করা হয়।

১৯৬৪ - দ: ভিয়েতনামের জেনারেল নগুয়েন খানের সাইগনে সেনা অভ্যুনত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেন।

১৯৭২ - সাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান নিরুদ্দেশ হন।

১৯৭২ - কমনওয়েলথ থেকে পাকিস্তানের নাম প্রত্যাহার করে।

১৯৭২ - ন্যাপ, কমিউনিস্ট পার্টি ও ছাত্র ইউনিয়নের সম্মিলিত গেরিলা বাহিনীর অস্ত্র সমর্পণ করে।

১৯৮২ - ৪০০ লাইন দীর্ঘ ১ম কম্পিউটার ভাইরাস কোড এল্ক ক্লোনার লিখেন রিচার্ড স্ক্রেন্টা। এটি এ্যাপল কম্পিউটারের বুট প্রোগ্রাম ধ্বংস করে দেয়।

১৯৮৯ - আফগানিস্তানের কাবুলে আমেরিকার দূতাবাস বন্ধের ঘোষণা করে।

১৯৯০ - চেকোশ্লোভাকিয়ার পার্লামেন্টে ৪ দশক পর কমিউনিস্ট পার্টি তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায়।

১৯৯৪ - পিটার লেকো সর্বকনিষ্ঠ গ্রাণ্ডমাস্টারের মর্যাদা পান।

২০০০ - আইভোরী কোস্টের উপকূলে আটলান্টিক মহাসাগরে কেনিয়া এয়ারওয়েজের ফ্লাইট ৪৩১ বিধ্বস্ত হয়ে ১৬৯ জন মৃত্যুবরণ করে।

১৮৮২ - করেছিলেন ফ্রাংক্‌লিন ডেলানো রুজ্‌ভেল্ট, তিনি ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৩২তম রাষ্ট্রপতি।

১৮৯৯ - করেছিলেন ম্যাক্স টেইলের, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী দক্ষিণ আফ্রিকান ভাইরাসবিদ।

জন্ম:

১৯১৭ - কথাশিল্পী নরেন্দ্রনাথ মিত্র জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৩১ - অস্ট্রেলিয়ান লেখক শার্লি হাযযারদ জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৩৭ - ইংরেজ অভিনেত্রী ভানেসসা রেডগ্রাভে জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৪৯ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী আমেরিকান চিকিৎসক ও জীববিজ্ঞানী পিটার অ্যাগর জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৮০ - ভেনিজুয়েলীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন অভিনেতা উইল্মার ভালদারামা জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৮৯ - স্প্যানিশ ফুটবল খেলোয়াড় টমাস মেজিয়াস জন্মগ্রহণ করেন।

মৃত্যু:

১৭৮৮ - রোমে ব্রিটিশ রাজত্বের তরুণ উত্তরাধিকারী চার্লস এডওয়ার্ড স্টুয়ার্ন মত্যুবরণ করেন।

১৯২৮ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ডেনিশ চিকিৎসক জোহানেস ফিবিগের মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৪৮ - ভারতের স্বাধীনতার প্রতিষ্ঠাতা ও জাতীয় নেতা মোহন দাশ করমচাঁদ গান্ধী (মহাত্মা গান্ধী) নিহত হন।

১৯৭২ - প্রখ্যাত বাঙালি চলচ্চিত্র পরিচালক, ঔপন্যাসিক, এবং গল্পকার জহির রায়হান মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৬৩ - ফরাসি সুরকার ফ্রান্সিস পউলেঞ্চ মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৬৯ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী বেলজিয়ান ভিক্ষু ডমিনিক পিরে মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৭৫ - শিশু সাহিত্যিক মোহাম্মদ নাসির আলী মৃত্যুবরণ করেন মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৯১ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী আমেরিকান পদার্থবিদ জন বারডিন মৃত্যুবরণ করেন।

২০১৩ - বেলজিয়ান চিত্রশিল্পী রজার রাভীল মৃত্যুবরণ করেন।

২০১৪ - কানাডিয়ান অভিনেতা ক্যাম্পবেল লেন মৃত্যুবরণ করেন।

বাড়িতে তুলসী গাছের সামনে ভুলেও এই জিনিসগুলো রাখবেন না, অশান্তিতে জীবন ছারখার হয়ে যাবে

আমাদের প্রায় সব বাড়িতেই তুলসী গাছ আছে। কিন্তু তুলসী গাছের সামনে অনেক সময় আমরা এমন কিছু রেখে থাকি, যা রাখা হয়ত একদমই উচিত নয়।কিছু কিছু সময় দেখে যায়, বাড়িতে সব ধরনের নিয়ম মেনে চলেও অশান্তি কিছুতেই কমছে না, বরং দিন দিন অশান্তির পরিমাণ বেড়েই চলেছে। দুঃখ কষ্ট যেন পিছন ছাড়ছে না।

আবার অনেক সময় এমনটাও হয় যে, কোনও কাজ প্রায় শেষ হয়েও বাধা পাচ্ছে। তারপর দেখা যায় দিনের শুরুটা খুব সুন্দর কাটলো, কিন্তু দিনের মাঝামাঝি বা শেষটা অশান্তিতে ভরে উঠল। এ রকম কেন হচ্ছে, ভেবে ভেবে কোনও কূল কিনারা পাওয়া যায় না।

tulsi30

আমাদের প্রায় সব বাড়িতেই তুলসী গাছ আছে। কিন্তু তুলসী গাছের সামনে অনেক সময় আমরা এমন কিছু রেখে থাকি, যা রাখা হয়ত একদমই উচিত নয়।

কিছু কিছু সময় দেখে যায়, বাড়িতে সব ধরনের নিয়ম মেনে চলেও অশান্তি কিছুতেই কমছে না, বরং দিন দিন অশান্তির পরিমাণ বেড়েই চলেছে। দুঃখ কষ্ট যেন পিছন ছাড়ছে না।

আবার অনেক সময় এমনটাও হয় যে, কোনও কাজ প্রায় শেষ হয়েও বাধা পাচ্ছে। তারপর দেখা যায় দিনের শুরুটা খুব সুন্দর কাটলো, কিন্তু দিনের মাঝামাঝি বা শেষটা অশান্তিতে ভরে উঠল। এ রকম কেন হচ্ছে, ভেবে ভেবে কোনও কূল কিনারা পাওয়া যায় না। 

বাড়িতে তুলসী গাছ রয়েছে অথচ তার পুজো সঠিক নিয়মে না করার ফলে এমনটা হতে পারে, বা তুলসী গাছের কাছে অজান্তেই এমন কিছু জিনিস রেখে দেওয়া আছে যা রাখা একদমই উচিত নয়। এতে অশান্তির পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে।

দেখে নেওয়া যাক তুলসী গাছের কাছে কী কী জিনিস রাখা যায় না:-

১) তুলসী গাছ যেন কখনোই শুকনো না থাকে৷ এটা সবসময় খেয়াল রাখবেন৷ কারণ এতে আপনার পরিবারের উপর খারাপ ছায়া পড়তে পারে৷

২) ভেজা কাপড়– যে কোনও ভেজা কাপড় যেন তুলসী গাছের কাছে না থাকে। ভেজা কাপড় শুকোতে দেওয়ার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন সেখানে তুলসী গাছ না থাকে। এর ফলে বাড়িতে প্রচুর পরিমাণে নেগেটিভ এনার্জি প্রবেশ করে এবং বাড়ির পরিবেশকে অশান্তিময় করে তোলে।

৩) কোনও দেবতার ছবি– মনে রাখতে হবে, তুলসী গাছের নীচে যেন কোনও দেবতার ছবি যেন না থাকে। তুলসী গাছকে সর্বদা একা রাখলে তবেই গৃহস্থের মঙ্গল।

৪) আবর্জনা– তুলসী গাছের আশেপাশে যেন কোনও ভাবেই আবর্জনা জমতে না পারে সে দিকে বিশেষ ভাবে নজর দিতে হবে। তুলসী গাছের চার পাশ পরিষ্কার পরিছন্ন থাকলে অশান্তি বাড়ি থেকে অনেক দূরে থাকবে এবং সংসারে শান্তি বজায় থাকবে।

৫) জুতো– তুলসী গাছের নীচে ভুল করেও জুতো রাখতে নেই বা থুতু ফেলতে নেই। এতে বাড়ির পজিটিভ শক্তি নষ্ট হয়। বাড়িতে অমঙ্গলের ছায়া নেমে আসে।

৬)যখন তখন গাছ থেকে তুলসী পাতা ছিঁড়ছেন? যদি এটা করে থাকেন তবে বলবো এখন থেকে তা বন্ধ করে দিন৷ কারণ তুলসী পাতা ছেঁড়ার একটা নির্দিষ্ট সময় আছে৷ পুরাণ অনুযায়ী একাদশী, দ্বাদশী, সংক্রান্তি, সন্ধ্যা বেলা কখনওই তুলসী পাতা ছেড়া উচিত না৷ তাই এই সময় গুলোয় কখনোই তুলসী পাতা ছিড়বেন না ৷

৭)কোন মরে যাওয়া তুলসী গাছ কখনওই বাড়িতে রাখবেন না৷ মরে যাওয়া বা শুকিয়ে যাওয়া তুলসী গাছ তুলে লাগান নতুন তুলসী গাছ৷

*আবার অনেকে না জেনে যে ভুলটি করে থাকেন যারা জানেন না তাদের জানা দরকার, জানলে ভুলেও আর করবেন না সাবধা!  

★অনেকেই সর্দি কাশি হলে তুলসী পাতা চিবিয়েই খেয়ে নেন৷ কিন্তু এটা খুবই খারাপ৷ কারণ তুলসী পাতায় অবস্থিত মার্কারি নামক উপাদান মানুষের দাঁত ও মাড়ির জন্যে খারাপ৷

 

আজকের রাশিফল| ১৯ নভেম্বর

মেষ
কঠিন ভারটুকু নেমে যাবে আজ। টেরই তো পাবেন না।

বৃষ
কিছু একটা জানার আকাঙ্ক্ষায় থাকবে মন। বড্ড আবেগী হয়ে থাকবেন।

মিথুন
আপনার যেকোনো কাজে কেউ চটে যাবে হয়তো। যুক্তিটাই কিন্তু আপনার প্রধান অস্ত্র।

কর্কট
নিজেই নিজের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন আজ। সত্যিকারের আপনিরই জয় হতে চলেছে।

সিংহ
অস্বাভাবিক লাগতে পারে কোনো কিছু। চোখ বুজে ভাবতে থাকুন।

কন্যা
সার্থক একটি দিন হয়তো কাটবে। সৌভাগ্য ধরা দিচ্ছে যে।

তুলা
ঝামেলাপূর্ণ কাজগুলো বেশ মসৃণভাবেই শেষ হবে। নিজ গুণেই।

বৃশ্চিক
কাজের চাপে বিশ্রামের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলতে পারেন। আজ একটু বিশ্রাম নিন।

ধনু

অটল থাকার সিদ্ধান্তের কারণে জয় তো আপনার প্রাপ্য, নাকি?

মকর
অন্ধকারটা ধীরে ধীরে আলোয় রূপ পেতে যাচ্ছে। যদিও স্পষ্টভাবে দেখবেন কিছুটা পর।

কুম্ভ
নানা ভাবনা ভুলে কাজে ডুব দিন। দেখবেন, সব সরল হয়ে যাচ্ছে।

মীন
ছোটখাটো কোনো ব্যাপারে মনঃকষ্ট পেতে পারেন। মোটেই তা পাত্তা দেবেন না।

আজকের রাশিফল| ১৮ই নভেম্বর

মেষ
দারুণ ক্ষিপ্রতা দেখাবে কাছের কেউ। ইতিবাচক ফলও বয়ে আনবে হয়তো।

বৃষ
উৎফুল্ল হওয়ার মতোই কিছু টের পাবেন। এত আনন্দ রাখবেন কোথায়?

মিথুন
মনে মনে অনেক হিসাব কষেছেন। কিন্তু দিন শেষে কাজে এলেও আসতে পারে।

কর্কট
কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে যেতে পারেন। বিশ্রামকে বলুন না সঙ্গে থাকতে।

সিংহ
হেসেখেলেই দারুণভাবে কেটে যেতে পারে আজকের সময়টা। ঝামেলাহীন।

কন্যা
কারও কথায় তেতে না উঠে কৌশল অবলম্বন করুন।

তুলা
কোনো ব্যাপার আবার নতুন করে শুরু করবেন আজ, সফলতার দিকেই তা যাবে নিশ্চিত।

বৃশ্চিক
মায়ার বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে আজ বাস্তব সিদ্ধান্ত নিন।

ধনু
কোনো কারণে রাগ করতে যাবেন তো হেরে গেলেন।

মকর
উটকু কোনো ঝামেলা সামলাতে হবে আজ। খুব সতর্কভাবে।

কুম্ভ
হৃদয়ের কথা আজ খুব কাছের মানুষকে জানান। রোম্যান্টিকতায় ভরা দিনখানা।

মীন
কিছু সুসংবাদ পাবেন। গুডলাক কি তাহলে একেই বলে?

আজকের রাশিফল| ১০ নভেম্বর


মেষ
ঠান্ডা লাগা থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখুন।

বৃষ
ধীরে ধীরে দানা বাঁধা কোনো ঝামেলা মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারে।

মিথুন
ব্যবসায়িক দিকটা আজ ভালো যাবে।

কর্কট
কোনো কিছু মূল্যায়নের ক্ষেত্রে দৃষ্টিভঙ্গির নাটকীয় পরিবর্তন আসবে।

সিংহ
যোগাযোগে বেশ সক্রিয় হয়ে উঠবেন আজ। এটাই কি মোটিভেশন?

কন্যা
ক্ষুব্ধ হতে পারেন কোনো কারণে। মেজাজের পারদটা নিচে নামান।

তুলা
অনেক দিনের স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে।

বৃশ্চিক
অনুশাসনের সুফল বুঝতে পারবেন আজ।

ধনু
সীমাবদ্ধতাকে জয় করার দিন। দারুণ আনন্দ যে আজ!

মকর
চলার পথে নিজেকে নিরাপদে রাখার চেষ্টা করুন।

কুম্ভ
আপনার হৃদয়ের গভীরতা আজ সে টের পাবে। হৃদয়ের নাচন বাড়বে।

মীন
আপনার অসতর্কতার সুযোগ নিতে পারে কেউ। খুব খেয়াল কিন্তু।

ক্যাসিনোর জন্য প্রশাসন দায়ী

বাংলাদেশ একটি শান্তিপূর্ণ রাষ্ট্র। কিন্তু এ শান্তিপূর্ণ রাষ্ট্রকে অশান্তিতে ভরিয়ে তুলেছে কিছুসংখ্যক অসৎ মানুষ। তারা কোনোদিন এ দেশের ভালো চায়নি, আজও চায় না। এ অসৎ মানুষদের কারণেই সৃষ্টি হচ্ছে নানা সমস্যা; যার সমাধান করাও একটু জটিল হয়ে পড়েছে। তবে দৃঢ় অঙ্গীকার থাকলে তা করা সম্ভব।

দেশে জুয়া খেলার ব্যবসা ক্যাসিনো চালু হয়েছে অনেকদিন আগেই। দীর্ঘদিন অবৈধ ক্যাসিনোগুলো চলার পেছনে প্রশাসনের সহায়তা ছিল। দেশের ক্লাবগুলো একেকটি জুয়াখেলার হাউসে পরিণত হয়েছে। সম্প্রতি এগুলোতে অভিযান চালানো হয়। কয়েকজনকে গ্রেফতারও করা হয়। প্রশ্ন হল, যে কাজে পুলিশেরই একটি অংশের সহায়তা ছিল, সেখানে তারা লোক দেখানো কয়েকজনকে গ্রেফতার করে কী করবে?

পুলিশের ভাষ্য হল, ক্লাবগুলোতে জুয়াখেলা হয় জানতাম; কিন্তু ক্যাসিনো আছে সেটি জানতাম না! অথচ সত্য হল, ক্যাসিনোগুলোর অবস্থান থানা বা পুলিশ স্টেশন থেকে অল্প দূরত্বে। কাজেই কোনো নির্বোধও বিশ্বাস করবে না, এসব কার্যকলাপ পুলিশ বা প্রশাসনের নজরের বাইরে ছিল। আর যদি তাদের নজরে বাইরে থেকে থাকেও, সেটাও তাদের দায়িত্বে অবহেলা।

আসলে ক্যাসিনোগুলো চলছিল রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশের যৌথ উদ্যোগে। অবৈধ ক্যাসিনো চলত পুলিশের পাহারায়। শুধু পুলিশই নয়, গোয়েন্দা সংস্থার অনেক সদস্যও এ অবৈধ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, দেশে ক্যাসিনোর অস্তিত্ব সম্পর্কে ২০১৭ সালের জুনেই পুলিশ আনুষ্ঠানিকভাবে জানতে পারে। পরের বছর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর পল্টন থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে। তারপরও ক্যাসিনোগুলো বন্ধের কোনো উদ্যোগ নেয়নি পুলিশ। ক্যাসিনো বন্ধ করলে পুলিশের মোটা অঙ্কের অর্থ পাওয়ার পথ বন্ধ হয়ে যাবে, এটিই কি এর কারণ?

যে দেশের প্রশাসন বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দুর্নীতিপরায়ণ, সে দেশে আর যাই হোক, শান্তি বা শৃঙ্খলা আশা করা যায় না। যারা নিজেরা অপরাধের সঙ্গে জড়িত, তারা কীভাবে অপরাধী খুঁজে বের করবে? আর অপরাধী খুঁজতে গেলে তো সর্বপ্রথম নিজেদের দিকেই আঙুল উঠবে। তাই তারা বিভিন্ন সময় হাতের নাগালে থাকা অপরাধীকেও এড়িয়ে যায় নিজেদের স্বার্থে।

সবচেয়ে দুঃখজনক ঘটনা হচ্ছে, এসব ক্লাবের উদ্যোক্তাদের রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা থাকায় কেউ কেউ অন্য দলের সঙ্গে যুক্ত থাকলেও বলে সরকারি দল করি। এগুলো গড়ে ওঠার জন্য দেশের প্রশাসন দায়ী। এ অনিয়ম-দুর্নীতি থেকে ফেরার কোনো উপায় আছে কি? যদিও জানি, বিদ্যমান ব্যবস্থায় অনেক দুর্নীতিই স্বাভাবিক। এ অনিয়ম-দুর্নীতি থেকে রক্ষার জন্য সরকারের দৃঢ় পদক্ষেপ জরুরি।

কল্পনা আক্তার : শিক্ষার্থী, ইংরেজি বিভাগ, গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ

আজকের রাশিফল| ৮ অক্টোবর

মেষ
উদ্ভট গপ্প ফেঁদে ঝামেলায় ফেলতে চাইবে কেউ। কেয়ারফুল থাকুন।

বৃষ
কাছের মানুষ আরও কাছে আসবে অদ্ভুত কোনো কারণে।

মিথুন
মেজাজ শীতল থাকবে। তারপরও ঝামেলা করছেন কেন?

কর্কট
আজ অলসতা কাজে পিছিয়ে ফেলে দিতে পারে।

সিংহ
আশাহত হতে পারেন আজ। হারের খুব কাছাকাছি থেকে ফিরে আসবেন।

কন্যা
অপ্রত্যাশিত কোনো সহায়তা পেতে যাচ্ছেন আজ।

তুলা
আজ সময়ের কাজ সময় থাকতেই করে ফেলুন।

বৃশ্চিক
হতাশায় ডুবে না গিয়ে কাজে ডুব মারুন আজ।

ধনু
আবেগে ভেসে না গিয়ে যুক্তির রাস্তায় হাঁটুন, নতুবা পস্তাবেন।

মকর
অযাচিত বেদনায় কাতর হবার সম্ভাবনা আছে।

কুম্ভ
কোনো ধরনের বিতর্ক করা যাবে না আজ।

মীন
আজ তুমুল উত্তেজনাপূর্ণ কিছু মুহূর্ত কাটাবেন।

আজকের রাশিফল| ৭ নভেম্বর

মেষ
আজ কোনো প্রত্যাশা পূরণ হতে যাচ্ছে। শুভদিন।

বৃষ
বেখাপ্পা কিছু সময় চেপে ধরতে পারে। সামলাতে হবে কৌশলে।

মিথুন
খেলাচ্ছলে কোনো ব্যাপার জটিল রূপ নিতে চাইবে। সাবধান।

কর্কট
গভীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় আছেন তার। আজ তার সমাপ্তি ঘটতে পারে।

সিংহ
হয়তো হৃদয়বিদারক, তবু হৃদয় দিয়ে কিছু একটার মোকাবিলা করুন।

কন্যা
নিপুণ দক্ষতার পরিচয় দিয়ে কাউকে মুগ্ধ করতে যাচ্ছেন। কনগ্রাচুলেশনস।

তুলা
শিকড়ের টানটা অনুভূত হবে আজ। ঘুরে আসুন না হয়।

বৃশ্চিক
সকল কাঁটা ধন্য করে দিনটাকে নিজের করে নিতে যাচ্ছেন। তা আপনি পারবেনও।

ধনু
শিল্পীমনা মনোভাবের দরুন প্রশংসিত হতে পারেন।

মকর
আজ মৌনতায় মুক্তি পাবেন। দিনটাও অনুকূলে।

কুম্ভ
আজ বেড়াতে যাওয়ার সুযোগ আসতে পারে। দেরি করছেন কেন?

মীন
স্বপ্ন আর বাস্তব কি এক হয়? আজ উত্তর পাবেন।